বিরাট দুর্নীতি # বিদেশে গম রফতানি যখন বন্ধ, তখনই ঘুরপথে আম্বানিকে ৬৭৬ কোটি টাকার গম রফতানির অনুমোদন দিল মোদী সরকার

—- প্রসূন আচার্য

আমরা একদিকে পার্থ, অনুব্রত এবং তাঁদের ঘনিষ্ঠদের বিপুল বেআইনি সম্পত্তি দেখছি। এই নিয়েই বাংলার মিডিয়া ব্যস্ত। অন্যদিকে, কী ভাবে সমস্ত নিয়ম কানুনকে নিজেদের মত করে ব্যবহার করে দুই গুজরাতি শিল্পপতি মুকেশ আম্বানি এবং গৌতম আদানিকে প্রতিদিন আরও কয়েক’শ কোটি টাকার মালিক করে তোলা যায়, যাতে তাঁরা বন্ড এর মাধ্যমে বিজেপির তহবিলে আরও বেশি করে টাকা দিতে পারেন, সেই খেলায় মেতে আছেন নরেন্দ্র মোদী এবং তাঁর সরকার।

বিদেশে গম রফতানিকে কেন্দ্র করে যে ভাবে রিলায়েন্সকে কার্যত কোটি কোটি টাকার বরাত পাইয়ে দেওয়া হয়েছে, তাতে বিষয়টি স্পষ্ট। কোনও ভারতীয় মিডিয়া নয়, আল জারিরা এই খবর ফাঁস করেছে।

ইউক্রেন গম রফতানিতে বিশ্বে সব থেকে এগিয়ে থাকা দেশ। কিন্তু রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের পরে সেই রফতানি বন্ধ হয়ে যায়। যদিও বিশ্ব জোড়া খাদ্য সংকটের জেরে সম্প্রতি একটি জাহাজ ইউক্রেন থেকে বিদেশে পাড়ি দিয়েছে। এদিকে এই অবস্থায় বিশ্ব বাজারে হু হু করে বেড়েছে গমের দাম।

ভারত সরকার দেশের খাদ্য সংকট ও সাধারণ মানুষের খাদ্য নিরাপত্তার কথা ভেবে ( বানিজ্য মন্ত্রক তাই বলেছিল) ১৩ মে, ২০২২ থেকে বিদেশে গম রফতানির উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। বিদেশে খাদ্য পণ্য তথা গম সব থেকে বেশি রফতানি করত আই টি সি কোম্পানি। হটাৎ এই ঘোষণায় আইটিসি সহ অন্য কোম্পানির মাথায় হাত! তারা হরিয়ানা ও পাঞ্জাবে যাদের কাছ থেকে গম কিনত, তাদের জানিয়ে দেয় গম নিতে পারছে না।

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, যারা ১৩ মে বা তার আগে গম রফতানি করার জন্য ব্যাংক গ্যারেন্টি বা লেটার অফ ক্রেডিট (L C) পেয়েছে, তারাই একমাত্র গম রফতানি করতে পারবে। দেখা যায় একটি, হ্যাঁ মাত্র একটি কোম্পানির এই এল সি রয়েছে। যারা ভারত থেকে বিদেশে গম রফতানি করতে পারবে। তা হচ্ছে রিলায়েন্স।

১২ মে, ২০২২ সেই এল সি আবুধাবির একটি ব্যাংক থেকে ইস্যু হয়েছে রিলায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের নামে। এটি রিলায়েন্স এর একটি সাবসিডিয়ারি সংস্থা। আরবের আবুধাবিতে নথিভুক্ত। যাদের কাজ খাদ্যপণ্য থেকে অপরিশোধিত তেল রফতানি করা। এরা ৬৭৬ কোটি টাকার গম রফতানির বরাত পেয়েছে।

এবার বুঝে দেখুন, ১৩ মে থেকে যে গম রফতানি বন্ধ হবে, সরকারি স্তর থেকে অর্থাৎ মোদী অ্যান্ড কোম্পানি নিশ্চয়ই সেই খবর মুকেশ আম্বানিকে আগাম দিয়েছে। না হলে যে কী করে তারা রফতানি ব্যান হওয়ার ঠিক একদিন আগেই বিদেশের ব্যাংক থেকে লেটার অফ ক্রেডিট বার করলো। যা আইটিসি বা অন্য কোম্পানি আদৌ বুঝতেই পারেনি!

এই অনুমোদনের সূত্র ধরেই হরিয়ানা থেকে বিপুল গম কিনে বিদেশে রফতানি করছে রিলায়েন্স। সব মিলিয়ে প্রায় আড়াই লক্ষ মেট্রিক টন। এর মধ্যে বিশ্ব বাজারে গমের দাম প্রায় ৩০-৫০ শতাংশ বেড়ে গিয়েছে। ফলে বিপুল লাভ করতে চলেছে রিলায়েন্স।

একই বলে ক্রণি ক্যাপিটাল। যা ভারতকে ক্রমেই টেনে নিচে নামাচ্ছে গরিবি এবং ক্ষুধার সূচকে। ফেসবুক থেকে সংগৃহীত । Pic courtesy: Zee News

Leave a Reply

Your email address will not be published.