দেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করতেই তিস্তা, জুবেরদের গ্রেফতার। উদয়পুরে দুই ধর্মান্ধ মুসলিম যা করল, সমান নিন্দনীয়।

—- প্রসূন আচার্য

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা গুজরাট দাঙ্গার সময় তৎকালীন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নির্দোষ বলার পরের দিনই গুজরাটের অ্যান্টি টেরোরিস্ট সেল মানবাধিকার নেত্রী তিস্তা শিতলাবাদ এবং তৎকালীন পুলিশ অফিসার, যিনি দাঙ্গার বিরুদ্ধে মুখ খুলেছিলেন, সেই প্রাক্তন আইপিএস আর কে শ্রী কুমারকে গ্রেফতার করে। ফ্যাসিস্ট বিজেপির দিল্লি পুলিশ তাদের দাঁত নখ আরও বার করে সোমবার ফ্যাক্ট চেক করার আলট নিউজের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা মহম্মদ জুবেরকে ২০১৮ সালের মিথ্যে মামলায় গ্রেফতার করে। প্রতীক সিনহার সঙ্গে জুবের যৌথ ভাবে এই অলট নিউজ তৈরি করে ছিলেন, যাতে সোশ্যাল মিডিয়া বা অন্য মাধ্যমে আপলোড করা ভিডিও বা খবর, সত্যি না মিথ্যে তা বোঝা যায়।

কংগ্রেস শাসিত উদয়পুরের এক টেলার অর্থাৎ জামা কাপড় সেলাই কর্মী বা দর্জি নূপুর শর্মাকে সমর্থন করে সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু পোস্ট করেছিলেন। তাতে ক্ষুব্ধ হয়ে দুই মুসলিম ব্যক্তি হুমকির পরে মঙ্গলবার বিকেলে ওই টেলারিং এর দোকানে আসে। তারপরে ক্যামেরার সামনে ওই দর্জিকে খুন করে, সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে। এই ঘটনায় উদয়পুর – সহ গোটা রাজস্থানে ভয়ঙ্কর উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ ব্যবস্থা নিয়ে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। প্রচুর পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। এই ভিডিও যাতে টিভিতে দেখানো না হয়, তার জন্য রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী আবেদন জানিয়েছেন। তবে অর্ণব গোস্বামীর চ্যানেল বা টাইমস নাউ তা মানবে বলে মনে হয় না।

স্বাভাবিক ভাবেই বার বার বিজেপির আই টি সেলের তৈরি মিথ্যে খবর আর কাট পেস্ট করে জোড়া মিথ্যে ভিডিও এতে ধরা পড়ে যাচ্ছিল। অমিত মালব্যর মত একজন মিথ্যে নির্ভর বিজেপির আই টি সেলের প্রধান বার বার অপদস্থ হচ্ছিলেন। পর পর এই তিনজনের গ্রেফতারের বিরুদ্ধে যখন ক্রমেই জনমত সংগঠিত হচ্ছে, মানুষ প্রশ্ন করছে, নবীর প্রসঙ্গে মন্তব্য করার জন্য কেন আজও নুপুর শর্মাকে পুলিশ ধরছে না ? ঠিক তখনই দুই উগ্র ধর্মান্ধ মুসলিম মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এমন কাজ করেছে, যাতে বিজেপির আরও সুবিধা হয়ে গেল!

বিজেপি এটাই চাইছিল। দেশ যখন ক্রমেই আর্থিক দিক থেকে তলিয়ে যাচ্ছে, বেকারত্ব বাড়ছে, জিনিসের দাম রোজ লাগিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে, ডলারের মোকাবিলায় রোজ পড়ছে টাকার দাম, আদানি সরকারি ব্যাংকে আমার আপনার সঞ্চিত টাকায় একের পর এক সস্তা দামে সরকারি সম্পত্তি কিনে নিচ্ছে, দেশে স্বাধীন সংবাদ মাধ্যম, মানবাধিকার বলে কোনও বস্তু থাকছে না, তখন জনগণকে ধর্মের আফিমে ভুলিয়ে রাখা।

সারাদিন মাথার মধ্যে হিন্দু মুসলিম, হিন্দু মুসলিম, হিন্দু মুসলিম এই বাইনারি, এই দ্বন্দ্বকেই মানুষের সামনে সব থেকে বড় সমস্যা হিসেবে তুলে ধরা। এটাই ইংরেজ সরকারের কাছে চিঠি দিয়ে ছয় বার মাফি মানা ভীরু সভারকারের প্রতিষ্ঠিত RSS এর মূল নীতি। যে RSS এর DNA তে স্বাধীনতা সংগ্রামের কোনও ইতিহাস নেই। নেই কোনো জেল খাটা স্বাধীনতা সংগ্রামীর নাম। ওই সভারকার ছাড়া!

একজন সমাজকর্মী হিসেবে হিন্দুদের কাছে আমার অনুরোধ, আপনারা উদয়পুরের ঘটনাকে নিন্দা করুন। কিন্তু উগ্র ধর্মান্ধ মানুষের বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবেই দেখুন। আগামী দিনে এই ঘটনার জেরে বিজেপি অনেক কিছু প্রচার করবে। তাতে দেশের মূল সমস্যার কিন্তু কোনো সমাধান হবে না। পুরোটাই আপনাদের মন ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য।
আর  মুসলিম সমাজের কাছে আমার আবেদন, আপনারা এই ঘটনার প্রকাশ্য নিন্দা করুন। দোষীদের শাস্তি দাবি করুন। পারলে পথে নামুন। যাতে বিজেপি পুরো মুসলিম সমাজকে এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত করে আপনাদের উপরে অবিশ্বাসের খাড়া  না নামিয়ে আনতে পারে। ফেসবুক থেকে গৃহীত । Pic courtesy: The wire & Zee News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *